নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগের দু’গ্রুপের বিক্ষোভকালে ককটেলসহ ১৮ কিশোর গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিনিধি : নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের প্রস্তাবিত কমিটির অনুমোদনের পক্ষে ও বিপক্ষে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশকালে ককটেলসহ ১৮ কিশোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গতকাল বুধবার বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে জেলার কবিরহাট উপজেলার বাটইয়া ইউনিয়নের ওটারহাট এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করে।

জানা যায়, নোয়াখালী-৪ আসনের এমপি একরামুল করিম চৌধুরীর সমর্থকরা জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটি (সভাপতি অধ্যক্ষ খায়রুল আনম সেলিম ও সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী) বহাল রাখা এবং বর্তমান কমিটি বাতিল করে নতুন কমিটি ঘোষণার দাবীতে নোয়াখালী জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিনসহ এমপি একরামবিরোধী স্থানীয় একটি গ্রুপ একই সময় একই স্থানে পাল্টাপাল্টি বিক্ষোভ সমাবেশ ডাকে। বিক্ষোভ চলাকালে ওটারহাট বাজারে একটি মাইক্রোবাস ঘেরাও করে এবং তার ভেতরে রাখা ৬টি ককটেল, ৩টি লোহার পাতসহ ১৮ কিশোর-যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে একরাম চৌধুরীবিরোধীরা।

এ ঘটনা সম্পর্কে নোয়াখালীর পুলিশ সুপার মো. শহীদুল ইসলাম আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে গণমাধ্যমকে জানান, গতকাল জেলার কবিরহাট থানার বাটইয়া ইউনিয়নের ভূঁইয়ারহাট বাজারে সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরীর অনুসারীরা ২০১৯ সালে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের ঘোষিত কমিটির পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করার আহ্বান জানিয়ে মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করে। একই সময়ে অপরপক্ষে জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি জসিম উদ্দিন শাহিন নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সম্ভ্যাব্য কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করে। উভয়পক্ষ একই স্থানে মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করায় সম্ভাব্য সংঘাত এড়াতে সেখানে পুলিশ মোতায়েন রাখা হয়।

এ সময় কবিরহাট থানার এসআই এনামুল হক দিপুসহ অন্যান্য অফিসার ও ফোর্স ভূঞারহাট বাজারে জরুরি ডিউটিরত থাকাকালীন বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে খবর পায় ভূঞারহাট বাজার থেকে আধাকিলোমিটার দূরে ওটারহাটে স্থানীয় লোকজন একটি মাইক্রোবাসসহ কতিপয় লোকজনকে আটক করে রেখেছে। সেখানে পুলিশ গিয়ে দেখতে পায় স্থানীয় লোকজন একটি মাইক্রোবাসসহ একরাম হোসেন মামুন (২৬) নামের সেনবাগ উপজেলার মাদলা গ্রামের খাকন মিয়ার ছেলেসহ ১৮ জনকে ঘিরে রেখেছে। পরবর্তীতে কবিরহাট থানা পুলিশ তাদের নিজ হেফাজতে নেয়। স্থানীয় লোকজনের সম্মুখে আটককৃত গাড়িটি তল্লাশি করে গাড়ির ভেতরে থেকে ৬টি অবিস্ফোরিত ককটেল জাতীয় বিস্ফোরকদ্রব্য, তিনটি লোহার পাত ও মাইক্রোবাস উদ্ধার করে পুলিশ হেফাজতে নিয়ে আসে।

পুলিশ সুপার আরও জানান, এ সময় স্থানীয় লোকজনের সামনে আটকৃতদের জিজ্ঞাসাবাদ করে তাদের নাম-ঠিকানা পাওয়া যায়। তাদের বাড়ি পার্শ্ববর্তী সেনবাগ ও বেগমগঞ্জ উপজেলায়। তাদের মধ্যে একরাম হোসেন মামুন জানায় যে, তার নেতৃত্বে সকলেই কবিরহাট থানা এলাকার ভূঁইয়ারহাট বাজারে পরস্পরবিরোধী মিছিল ও সমাবেশে যোগদান করে জীবন ও সম্পত্তি ক্ষতিসাধন করার জন্য উদ্ধারকৃত আলামত নিজ হেফাজতে মজুদ রেখে পরিকল্পনা করে ভূঁইয়ারহাট বাজারের দিকে যাচ্ছিল। এ ঘটনায় আটকৃতদের বিরুদ্ধে বিষ্ফোরকদ্রব্য ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আসামিদের আজ বৃহস্পতিবার আদালতে সোপর্দ করা হবে। জব্দকৃত বিস্ফোরকদ্রব্য ধ্বংস করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

শেয়ার করুনঃ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

  • আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

    রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০